হাতেখড়ি’র শিশু-কিশোর মোবাইল ফটোগ্রাফী প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত

নিজস্ব সংবাদাদাত:
জাতীয়-কিশোর পত্রিকা হাতেখড়ির আয়োজনে রাজধানীতে দুইদিন ব্যাপী মোবাইল ফটোগ্রাফী প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। শিশু-কিশোর মোবাইলে তোলা অর্ধশত ছবি নিয়ে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে ৮ নভেম্বর বিকেল ৩টায় প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়। দুই দিন ব্যাপী এপ্রদর্শণী চলে ৯ নভেম্বর, শনিবার বিকেল ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত।


সারা দেশে থেকে View From Your Eyes 2019 প্রতিযোগিতায় আহবানকৃত ছবির বাছাই করা মোবাইল ফটোগ্রাফী নিয়ে এই প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করে ৪০জন শিশু ও কিশোর ফটোগ্রাফার। যাদের অর্ধশত মোবাইল ফটোগ্রফী নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় প্রদর্শনী। অংশগ্রহণকারীদের মধ্য থেকে দুটি বিভাগে ১ম, ২য় ও তয় স্থান অর্জনকারীদের পুরস্কৃত করা হয়। ক বিভাগে প্রথম স্থান অর্জন করে অরিজিৎ আবির, ২য় রনি ও তৃতীয় স্থান অর্জন করে আফিয়া ইবনাত জয়া এবং খ বিভাগে প্রথম স্থান অর্জন করে আকলিমা আক্তার, ২য় দিব্য জতি কুন্ডু ও তৃতীয় স্থান অর্জন করে ফাহমিদা চৌধুরী।


পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে হাতেখড়ির সম্পাদক ও প্রকাশক শিশু সংগঠক তাহাজুল ইসলাম ফয়সালের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাউন্ট এভারেস্ট জয়ী পর্বত আরোহী এম এ মুহিত। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হাতেখড়ির উপদেষ্টা আলাউনইদ্দন গোলন্দাজ, খেলাঘর ঢাকা মহানগর দক্ষিনের সভাপতি কাজি জাবেদ ইকবাল শিহাব ও তরুন অভিনয় শিল্পী তামিম খন্দকার। ফিচার এডিটর আব্দুল্লাহ আল মামুন ও নিউজরুম এডিটর আরিয়ান হাবিব এর উপস্থাপনায় এসময় হাতেখড়ির চীফ ফটোগ্রাফার আনিসুর রহমান উদয়, সংবাদ প্রতিনিধি, ভলেন্টিয়ার, ফটোগ্রাফার ও ইভেন্ট সমন্বয়কবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আয়োজন সর্ম্পকে হাতেখড়ির সম্পাদক বলেন, আমরা শুধুমাত্র লেখালেখি নয় পাশপাশি শিশু ও কিশোরদের সুপ্ত প্রতিভাকে এগিয়ে নিতেও কাজ করছি। কারণ আমরা মনে করি একমাত্র সৃজনীল কর্মকান্ডই একজন মানুষকে প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়তা করে। প্রযুক্তির ব্যবহার হয়তো আমরা একেবারেই বন্ধ করে দিতে পারবো না কিন্তু এর সঠিক ব্যবহার যদি শিশুদের শিখিয়ে দিতে পারি তাহলে অন্তত অনেক অপরাধ কমানো সম্ভব হবে। তাই হাতেখড়ির এই মোবাইল ফটোগ্রাফী প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনীর আয়োজন।

উল্লেখ্য যে, ২০১৪ সালে শিশু-কিশোর মুখপত্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে হাতেখড়ি নামক এই জাতীয় শিশু-কিশোর পত্রিকা। যেখানে ঢাকাসহ দেশের প্রতিটি জেলাতে শিশু-কিশোরাই সংবাদকর্মী হিসেবে কজ করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *