স্টামফোর্ডে “ভোক্তা অধিকার আইন ও সুশাসন বিষয়ক কর্মশালা” - হাতেখড়ি

স্টামফোর্ডে “ভোক্তা অধিকার আইন ও সুশাসন বিষয়ক কর্মশালা”

মামুনুর রশিদ রাজীব:

দৈনন্দিন জীবনে আমরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন সেবাদাতা বা সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান বা সংস্থা থেকে ভোক্তা হিসেবে নানা ভাবে প্রতারিত হচ্ছি। প্রতারনা সমূহের মধ্যে রয়েছে প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সেবা প্রদান না করা,পরিমাপে কম দেওয়া, ভেজাল ও মেয়াদ উত্তীর্ণ পন্য সরবরাহ করা, পন্যের মূল্য বেশী রাখা ইত্যাদি। কিন্তু, সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি কর্তৃক প্রতারিত হলে আমাদের করণীয় সম্পর্কে আমরা প্রায় অধিকাংশ মানুষই জানি না। জানি না অসাধু এই সকল ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে বিচারের মুখোমুখি করতে পারি দেশের প্রচলিত ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর আওতায় এনে যার আইন বাস্তবায়নের জন্য রয়েছে শক্তিশালী জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। আর এসব বিষয়েই মানুষে মাঝে জন-সচেতনতা সৃষ্টি করতে স্টামফোর্ড ইয়েস গ্রুপ আয়োজন করে “ভোক্তা অধিকার আইন ও সুশাসন বিষয়ক কর্মশালা”। গত বৃহস্প্রতিবার স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটির সিদ্ধেশ্বরী ক্যাম্পাসের অডিটোরিয়ামে সকাল ১০ টায় শুরু হয়ে দুপুর ২ টায় শেষ হয় কর্মশালাটি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ শফিকুল ইসলাম লস্কর, টিআইবির আউটরিচ এন্ড কমিউনিকেশন বিভাগের পরিচালক শেখ মঞ্জুর-ই-আলম , স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার আব্দুল মতিন,ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য এবং স্টিয়ারিং কমিটির প্রধান ড.ফারাহনাজ ফিরোজ,ইয়েস গ্রুপের উপদেষ্টা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ইকোনমিক্স বিভাগের শিক্ষক মহসিনুল করিম, ইয়েস গ্রুপের কো-অর্ডিনেটর এবং সময় টিভির সংবাদ উপস্থাপক জাফর সাদিক, প্রশিক্ষক কনসাশ কনজ্যুমার সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা পলাশ মাহমুদ সহ ইয়েস গ্রুপের সকল সদস্য এবং সাধারন শিক্ষার্থীবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শফিকুল ইসলাম লস্কর বলেন, “আমাদের সকল দপ্তরের উচিত বিভিন্ন অন্যায় অপরাধের অভিযোগ গুলো অস্বীকার না করে বরং সেগুলোর সত্যতা নিশ্চিত করে অপরাধীদের শাস্তির আওতায় আনা এবং সেই সাথে সাধারন ভোক্তাদেরও উচিত তাদের ছোট বড় সকল অভিযোগ ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সহ যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে উত্থাপন করা”।

এছাড়া স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টিয়ারিং কমিটির প্রধান ড.ফারাহনাজ ফিরোজ বলেন,”জানার অধিকার সবার আছে। আর সেটা যদি হয় নিজের তথা ভোক্তা অধিকারের বিষয়ে তাহলে তো সেটার গুরুত্ব অনেক গুন বেড়ে যায়। আর সেই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জানার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়ায় স্টামফোর্ড ইয়েস গ্রুপকে অনেক ধন্যবাদ”।

এদিকে, ইয়েসের গ্রুপ লিডার তানভির রেজা আয়োজন সম্পর্কে বলতে গিয়ে বলেন, “আমাদের আজকের কর্মশালার উদ্দেশ্য একটাই। আর সেটা হল মানুষকে বা ভোক্তাদের তাদের ন্যায্য অধিকারের বিষয়ে সচেতন করে তোলা। আমরা বিশ্বাস করি, আজকের কর্মশালাটির মাধ্যমে যারা ট্রেনিং নিয়েছেন তারাই হবে আগামীর বাংলাদেশ যারা আগামীতে সমাজের ইতিবাচক পরিবর্তন করতে সক্ষম হবে। অনুষ্ঠানের শেষভাগে, স্টামফোর্ড ইয়েসের করা ডকুমেন্টারি প্রদর্শনী, সার্টিফিকেট বিতরন, অতিথিদের জন্য শুভেচ্ছা স্মারক প্রদান করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *