রাজধানীর মোহাম্মদপুরে শীতকালীন পিঠা উৎসব - হাতেখড়ি

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে শীতকালীন পিঠা উৎসব

সবু হোসেন কামাল :

স্কুলের সামনে যেতেই টের পাওয়া গেল উৎসব আমেজের। শীতের সকালে ঠান্ডা হিম বাতাসে উৎসবের আমেজটা নতুন মাত্রায় পাওয়া গেল। হ্যাঁ বলছিলাম সন্দীপন আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের কথা। দিনব্যাপী শীতকালীন পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়ে গেল স্কুলটির সামনের সড়কে। ২৮ই জানুয়ারি সোমবার রাজধানীর মোহাম্মদপুরের নবোদয় হাউজিংয়ে স্কুলের সামনের সড়কে অনুষ্ঠিত এ উৎসবের আয়োজন করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। পিঠা উৎসবের উদ্বোধন করেন স্কুলটির অধ্যক্ষ জনাব মোঃ আহসানুল হক। এছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণীর শিক্ষকরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

অধ্যক্ষ জনাব মোঃ আহসানুল হক বলেন, প্রতি বছরই আমরা পিঠা উৎসবের আয়োজন করে থাকি। ঋতুবৈচিত্রের এ দেশে শীত আমাদের অনেকের কাছেই প্রিয়। বাঙালি ঐতিহ্যগত কারণে এ ঋতুর সঙ্গে পিঠার অন্যরকম যোগসূত্র আছে। তাই শীতকে আমরা বরণ করে নিই এই পিঠা উৎসবের মাধ্যমে। তাছাড়া পিঠা উৎসবের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মিলনমেলা তৈরি হয়। এজন্য অধ্যক্ষ অংশগ্রহণকারী সকল স্টলের শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জানান।

শীতের সকালে পিঠার স্টলগুলো বর্ণিল সাজে সজ্জিত হয়ে উঠে। বেলুন, প্ল্যাকার্ড আর ফেস্টুনে সাজানো হয় পুরো স্কুল। বিভিন্ন শ্রেণরি শিক্ষার্থীরা নানা নামের বাহারি সাজের সুস্বাদু ১০০ রকম পিঠা নিয়ে হাজির হয় উৎসবে। উৎসবের পিঠার মধ্যে ছিল ভাপা, পুলি, পাটিসাপটা, ভিজা পিঠা, কাটা পিঠা, দুধচিতই, নকশি পিঠা, নারকেল পুলি, পাখি পিঠা, হৃদয়হরণ পিঠা, ভিক্কা পিঠা, ডিম পিঠা মত বাহারি নামের পিঠা। উপস্থিত সবাই বিভিন্ন ধরণের পিঠার স্বাদ গ্রহণ করেন। এছাড়া পথচারীরাও স্টল থেকে পিঠা কিনে তার স্বাদ গ্রহণ করেন। উৎসবে আলোর প্রভাত পিঠা ঘর, গ্রাম বাংলার পিঠা ঘর, খুশি পিঠা ঘর, বাহারি পিঠা ঘর, টেস্টি পিঠা ঘর, টু সিস্টার্স পিঠা ঘর মত বাহারি নামের স্টল অংশ নেয়।

কথা হলো উৎসবে অংশগ্রহণ করা গ্রাম বাংলা পিঠা ঘরের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে। গ্রাম বাংলা পিঠা ঘরের শিক্ষার্থীরা জানান, আমরা আমাদের এবারের স্টল বিভিন্ন রকমের পিঠা দিয়ে সাজিয়েছি। যার মধ্যে রয়েছে পাখি পিঠা, হৃদয়হরণ পিঠা, ভিক্কা পিঠা, নাগিন পিঠা অন্যতম। সবার সাধ্যের মধ্যে ছিল বলেই ইতিমধ্যে আমাদের সব পিঠা বিক্রি হয়ে গেছে। শহুরে সমাজে সেই ঐতিহ্যের ধারা কিছুটা মলিন হয়ে গেলেও শিক্ষার্থীদের এমন পিঠা উৎসবের আয়োজন বাঙালি শীত আর পিঠা কথা দুটি যেন একটি অপরটির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

সন্দীপন আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের আয়োজিত পিঠা উৎসব তাই উৎসবের সঙ্গে যেন অনেক স্মৃতিও মনে করিয়ে দেয়। কবির ভাষায়থ ্পৌষ পার্বণে পিঠা খেতে বসে খুশিতে বিষম খেয়ে আরও উল্লাস বাড়িয়েছে মনে মায়ের বকুনি খেয়ে শিক্ষার্থীদের বৈচিত্রময় উপস্থাপনায় কোলাহলমুখর হয়ে ওঠে উৎসবস্থল। সন্ধ্যে পর্যন্ত চলে এ পিঠা উৎসব। শেষে উৎসবে অংশগ্রহণকারী স্টলদের মধ্যে ১ম, ২য় স্থান বাছাই করে বিজয়ী স্টলদের পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *