বন্ধুকে বই উপহার  - হাতেখড়ি

বন্ধুকে বই উপহার 

মোঃ মেহেদী হাসান:

বই বিশ্বাসের অঙ্গ, বই মানব সমাজকে টিকে রাখার জন্য জ্ঞান দান করে। অতএব বই হচ্ছে সভ্যতার রক্ষাকবচ।

বই হলো সম্পর্কের সেতু, বই পড়েই কেবল ভালো থাকা যায়। বই মানুষে মানুষে বন্ধন মজবুত করে। তাই প্রিয়জনকে উপহার দেওয়ার এর চেয়ে ভালো জিনিস আর কিবা হতে পারে। বইয়ের মাধ্যমে অকৃত্রিম বন্ধু হওয়া যায়। বই হচ্ছে সেরা উপহার।
চমৎকার একটি বই যেমন হতে পারে দারুণ উপহার। তেমনি পাল্টে দিতে পারে মানুষের মনোজগৎ। কেননা বই মানুষের মনকে সুন্দর করে, সমৃদ্ধ করে। মানুষের জীবন, সমাজ, রাষ্ট্রকে পাল্টে দিতে সাহায্য করে। বই পড়ার মধ্য দিয়ে মানুষ তার মনকে উন্নত ও সুন্দরের পথে নিয়ে যেতে পারে। চেতনা বিকাশে সাহায্য করে ।
বইয়ের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি করতে পাঠাগার এবং পাঠচক্র বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে। পাঠাগারকে শুধু শহরে সীমাবদ্ধ না রেখে গ্রামগঞ্জে ছড়িয়ে দিতে হবে। মনে রাখতে হবে, সচেতন ও জ্ঞানী মানুষের কাছে বই-ই হচ্ছে সর্বশ্রেষ্ঠ উপহার। উপহার হিসেবে যদি বইকে প্রাধান্য দেওয়া হয় তাহলে তা যেমন রুচিশীল মানুষের জন্য হবে সবচেয়ে আনন্দের, তেমনি হবে স্থায়ীও। অন্যান্য উপহার সামগ্রীর প্রয়োজন ফুরিয়ে গেলেও একটি ভালো বইয়ের প্রয়োজন কখনও ফুরাবে না।
মানুষের মননশীল, চিন্তাশীল, সৃষ্টিশীল চিন্তার যাবতীয় সূচনার বিস্টেম্ফারণ একমাত্র বইয়ের মাধ্যমে হতে পারে। দুর্ভাগ্যের বিষয়, দিন দিন মানুষের মধ্যে বই পড়ার আগ্রহ কমে যাচ্ছে। মানুষ এখন বইয়ের পরিবর্তে ফেসবুক, টিভি, সিনেমা আর আড্ডা দিয়েই অবসর কাটায়। বই কেনা ও পড়ার অভ্যাসে ভাটা পড়ছে। প্রযুক্তিনির্ভর মানুষ বইকে সময়ক্ষেপণ বলেই মনে করে। ছাত্রছাত্রীরা নিতান্ত বাধ্য হয়েই পাঠ্যবই পড়ে। বই পড়ার প্রতি সমাজে যে অনীহা সৃষ্টি হয়েছে তা আমাদের ব্যক্তি ও সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের অন্যতম একটা কারণ। আমাদের জীবসত্তা জাগ্রত থাকলেও মানবসত্তা জাগ্রত করার সিঁড়ি হচ্ছে বই।
বই আমাদের শ্রেষ্ঠ বন্ধু আর তাই প্রিয়জনকে বেশি বেশি বই উপহার দিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *