ধর্ষণের বিরুদ্ধে সামাজিক সংগঠন ‘হোয়াইট ব্লাকের’ মানববন্ধন

অরণ্য সৌরভ:

ওঠো, চোখ খোল, জাগো ধর্ষণের বিরুদ্ধে। ধর্ষণ নারীর লজ্জা নয়, পুরুষ তুমি মানুষ হও। শিশুরা হাসবে খেলবে, ধর্ষণ হবে কেন। আসুন ধর্ষণের বিরুদ্ধে সোচ্চার হইআমার মা আমার বোন ধর্ষণ রোধে সোচ্চার হোন। নারী হওয়া কী অপরাধ। ধর্ষক কোন মানুষ নয়, সে পশু সকলে কয়। সামাজিকভাবে ধর্ষণকে বয়কট করুন। ধর্ষণের কোন সামাজিক, রাজনৈতিক পরিচয় নাই। ধর্ষণের শেকড় এবার ফেলুন উপড়ে।

রকম স্লোগান লেখা পোস্টার, প্ল্যাকার্ড ব্যানার হাতে নিয়ে দেশব্যাপী চলা ধর্ষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছে নারায়নগঞ্জের আড়াইহাজারের সচেতনমহল। ইউটিউব চ্যানেল সামাজিক সংগঠনহোয়াইট ব্লাকএর ব্যানারে আজ তারা আড়াইহাজারের সরকারি সফর আলী কলেজের সামনের প্রধান সড়কে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে

মানববন্ধনে স্কুলকলেজবিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া তরুণতরুণীদের সাথে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নিয়ে ধর্ষণের বিরুদ্ধে সচেতনতামূলক বক্তব্য তুলে ধরেন। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে শিশুরাও মানববন্ধনে অংশ নেয়। তাদের হাতেও ছিল ধর্ষণের বিরুদ্ধে লেখা স্লোগান

আজ রোববার বেলা ১১টার দিকে সংগঠনের সভাপতি মহিতুল ইসলাম হিরুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনের সময় বক্তব্য দেন আলোর পথযাত্রী পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা সফুরউদ্দিন প্রভাত, সরকারি সফর আলী কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি শরীফুল ইসলাম শরীফসহ ছাত্র সংসদের নেতৃবৃন্দ, কবি লেখক মোশাররফ মাতুব্বর, সায়েম অনিন্দ্য, হোয়াইট ব্লাকের পরিচালক অরণ্য সৌরভ, সাধারণ সম্পাদক সুজন মাহমুদ প্রমুখ

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকতা আঞ্জুমান আরা বলেন, আমাদের নৈতিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের জয়জয়কার। আমাদের নৈতিক শিক্ষার খুবই প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। আমাদের মধ্যে নৈতিক মূল্যবোধ জেগে উঠার মাধ্যমেই এর প্রতিকার হতে পারে।

সরকারি সফর আলী কলেজের সাবেক ভিপি শরীফুল ইসলাম শরীফ বলেন, ছাত্র সমাজ জেগে উঠার মাধ্যমে আমরা একটি সুন্দর সমাজ, রাষ্ট্র পেতে পারি। নারী জাতি আমাদের মা-বোন, তাদের সহিংসতার বিরুদ্ধে সকলে এক কাতারে দাঁড়ালে অবশ্যই ধর্ষণের মতো জঘন্য কর্মের প্রতিকার হবে।

হোয়াইট ব্লাক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সুজন মাহমুদ বলেন, পরিবার, সমাজ রাষ্ট্রযন্ত্রের নীতি নির্ধারকদের ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধের বিরুদ্ধে আরো সচেতন হওয়ার পাশাপাশি কঠোর অবস্থান নিতে হবে, তাহলে ধর্ষণের মতো জঘন্য অপকর্ম সমাজ থেকে বিনাশ হবে।

এসময় সংগঠনের সভাপতি মহিতুল ইসলাম হিরু বলেন, নারীর পোষাক নয়, আমাদের মানুষরুপী পশুগুলোর মানসিকতাই এর জন্য দায়ী। কারন দেখা যায় একটা বছরের শিশুও দেশে ধর্ষণের শিকার হচ্ছে এবং বখাটেরা দিবালোকে মানুষের সামনে মেয়েদের উত্যক্ত করতে এতোটুকু ভয় তো পাচ্ছেই না উল্টো শারীরিক লাঞ্ছনার পথ বেছে নিচ্ছে নির্বিকার চিত্তে! এসব কুলাঙ্গারের কঠিনতম শাস্তি নিশ্চিত না হলে আগামীতে আপনার বোন আর কন্যাও এমনিভাবে লাঞ্ছিত হবে

সংগঠনের পরিচালক অরণ্য সৌরভ বলেন, আমাদেরকে সম্মিলিত প্রচেষ্টার সচেতনতার মাধ্যমে ব্যাধিটাকে সমাজ থেকে নির্মূল করতে হবে। আমাদের এই অসুস্থ সমাজে শুধু নারী বা শিশু নয়, আমরা কেউই নিরাপদ না। সবার চোখ, কান খোলা রেখে রুখে দাঁড়ালে, সচেতন হলে ধর্ষণের মতো অপকর্ম দূর হবে বলে আশা করি।

এছাড়াও মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন হোয়াইট ব্লাকের সদস্য মোজাম্মেল আহমেদ, তানিয়া সরকার, মরিয়ম আক্তার, নাসরিন আক্তার, সোহাগ, পারভেজ মিয়া, ভিপি প্রার্থী সাদেক হোসেন, ইব্রাহিম বাবু প্রমুখ

এসময় জনসাধারনের হাতে নানা ধরনের প্লেকার্ড প্রদর্শন করতে দেখা যায় এবং হোয়াইট ব্লাক আরো বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনকে ধর্ষণ যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়া তোলার আহবান জানান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *